দ্যা স্লিপিং কিং (পর্ব পাঁচ)

oputanvir
4.8
(11)

নাইরুর সামনে আর কোন পথ নেই । নিজের জীবন বাঁচাতে তাকে ওদের কথা শুনতেই হবে । 

কিন্তু এছাড়া আর কোন উপায় ওর কাছে নেই ।  নয়তো কেবল ওর নিজের প্রাণটাই যাবে না ওর নাতির জীবনটাও এরা নিয়ে নিবে ।

সামনে বসা মানুষটা আবারও বলল, এতো চিন্তা করার কিছু নেই । কফিনটা কেবল ওখানে রাখবে । আর তোমাকে কিছু করতে হবে না ।

-কিন্তু?

-কোন কিন্তু না । আমাকে তুমি খুব ভাল করেই চিনো । তুমি জানো আমি না শুনতে পছন্দ করি না । আর আমি তো তোমাকে এমন কঠিন কাজও করতে বলছি না । বলছি কি?

নাইরু আর কোন কথা বলার সাহস পেল না । এই মানুষটাকে সে খুব ভাল করেই চেনে । নিজের শত্রুদের সাথে তার যে কতটা কঠিন আচরণ সেটার সম্পর্কে নানান রকম গল্প সে জানে । 

-কফিনে কী আছে?

-সেটা তোমার না জানলেও চলবে। কেবল মূল্যবান কেউ শুয়ে আছে !

নাইরুর কাধে একটা বিশেষ বাড়ি তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। বাড়ি না বলে উপাসনালয় বললেই ভাল হবে। ইউরোপের চার্চ থেকে এটা তৈরির জন্য অর্ডার এসেছে । বেশ ভাল টাকা পয়সা খরচ হচ্ছে । ঢাকা থেকে দুরে এমনে কটা স্থানে এতো বড় উপাসনালয় তৈরির কারণটা নাইরু জানে না । তবে সেটা নিয়ে ওর অবশ্য খুব একটা চিন্তাও নেই । ওর কাজ কেবল বাড়ি তৈরি করে দেওয়া । ও সেটাই করে দিচ্ছে। 

কিন্তু এর মাঝপথে এসে যখন ঢাকার সব থেকে বড় ব্যবসায়ী তার সাথে দেখা করল তখনই মনে হল কিছু একটা ঝামেলা আছে এই বাড়ি নিয়ে । নাইরু একটা সময়ে এই ব্যবসায়ীর কাছেই চাকরি করত। তারপর এক সময়ে সেখান থেকে বের হয়ে এসে নিজের ফার্ম দিয়েছে। 

নাইরু বলল, আমাকে কী করতে হবে?

-কিছু না । বেজম্যান্টের কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে না?

-জ্বী। 

-ব্যাস তাহলেই হবে । তুমি কেবল আজ রাতে ওখানে থাকবে । সকল পাহাড়াদারদের ছুটি দিয়ে দিও । আমার লোকজন রাতে ওখানে যাবে । ওরাই সব কাজ করে দিয়ে । কেউ জানতেও পারবে না যে ওখানে কিছু ছিল । ঠিক আছে?

-জ্বী !

-এই কথা যেন কেউ কখনো না জানতে পারে। জানলে এর ফল যে কী হবে সেটা তুমি খুব ভাল করেই জানো । 

ঐদিন রাতেই একটা বড় ট্রাক এসে থামলো কনস্ট্রাকশন সাইটে । সেখানে কেবল নাইরু ছিল । আর কেউ সেখানে ছিল না । সবাইকে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়েছিল । 

##

মিমি অন্ধের মত করেই হাটছে । সামনে কী আছে সেটা ওর জানা নেই । তবে তার কেবল মনে হচ্ছে যেন খুব কাছের কেউ ওকে ডাকছে । সে সামনের সেই অন্ধকারের ভেতরেই আছে । ওকে তীব্র ভাবে ডাকছে । এই ডাক সে উপেক্ষা করতে পারছে না । 

মিমি সামনে এগিয়ে চলল । 

##

আরিয়ানা যেন নিজের কানকে ঠিক মত বিশ্বাস করতে পারলো না । ভ্যাম্পায়ার কিং এখানে শুয়ে আছে? এটা কী আদৌও সম্ভব? ওদের নিজের একটা হেড কোয়াটারেই ভ্যাম্পায়ার কিং শুয়ে আছে! কেউ কখনও কি কল্পপনা করেছে যে রায়ানের কফিন এখানেই রয়েছে । 

আরিয়ানা যতদুর জানে রায়ানের মৃত্যুর পরে একটা সময় পর্যান্ত তার কফিন কোথায় আছে সেটার ব্যাপারে চার্চের একটা ধারণা ছিল । ইউরোপের নানান স্থানে সেটা ঘুরে বের হয়েছে । চার্চ সেই সময়ে খুব চেষ্টা করেছে কফিনটা হাতে পাওয়ার তবে সেটা কব্জা করতে পারে নি । প্রতিবারই কিভাবে জানি তারা জেনে যেত আর চার্চ কাছে যাওয়ার আগেই কফিন নিয়ে হাওয়া হয়ে যেত । তবে একটা সময়ের পরেই কফিন সম্পর্কে আর কোন তথ্যি চার্চের কাছে ছিল না । সেটা যেন হওয়ায় মিলিয়ে গিয়েছিল । 

আরিয়ানার কাছে এইবার ব্যাপারটা পরিস্কার হল । চার্চ সব জায়গাতে রায়ানকে খুজলেও নিজেদের বাসার ভেতরে খুজবে না সেটাই স্বাভাবিক । এই হেডহোয়াটার তৈরির সময়েই এখানে সেট করে দেওয়া হয়েছে সেটা । 

বেজমেন্টের পথ কোন দিকে?

আরিয়ানা কোন কথা বলল না । মিমি বলল, আমাদের হাতে খুব বেশি সময় নেই ।  আমি আগেই বলেছি কারো কোন ক্ষতি আমি করতে চাই না । দয়া করে বাধ্য করবে না । 

-তুমি কিভাবে নিশ্চিত হচ্ছো যে কফিনটা এখানেই আছে?

-আমি নিশ্চিত করেই বলছি কারণ আমি জানি । ও এখানেই আছে। এই যে আমি সেটা টের পাচ্ছি । এই কলারটা দেখছো না, এটাই আমাকে বলে দিচ্ছে । 

-তুমি জানো রায়ান জেগে উঠলে আবার কী হবে?

মিমি পুরো ঘরের এদিক ওদিক তাকাল । তারপর আরিয়ানার দিকে ফিরে তাকাল । বলল, না জানি না আসলে। এবং তুমিও জানো না সে জেগে উঠলে কী হবে। জানো কি ? তুমি যা জানো তা হচ্ছে তোমার পূর্বপুরুষদের শেখানো বুলি ! আর কিছু না । 

-তুমি জানো না ওরা কী করে? মানুষদের সাথে ওদের আচরণ কেমন ? 

-ওরা আমাদের সাথে ঠিক তাই করে যা আমরা অন্য সব প্রাণীদের সাথে করি । এর বাইরে কিছু করে কি?

-তুমি পাগল হয়ে গেছো । ঐ কলার তোমার মনটা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিয়েছে।

-ভুল । আমি এটা পরি না। এটা কিছু দিন আমার  নেশায় পরিণত হয়েছিল সত্য তবে এখন এটা আমার জন্য দরকার জিনিস না । আমি কেবল আজকে এটা পরেছি রায়ানকে মুক্ত করার জন্যই।

-না তোমরা এটা করতে পারবে না । আমরা থাকতে করতে পারবে না ।

ঠিক সেই সময়েই বাইরে আওয়াজ শোনা গেল । সাধারণ মানুষের জন্য আওয়াজটা শোনা হয়তো সম্ভব না তবে ভ্যাম্পায়ারদের জন্য এমন আওয়ান শোনা সম্ভত । মিমি চারিদিকে তাকিয়ে দেখল অন্য সবাই সেটা বুঝতে পেরেছে।  এবং আরিয়ানা নিজেও বুঝতে পারল ব্যাপারটা । একটু হেসে বলল, তোমাদের বলেছিলাম না যে ব্যকআপ আছে ! আমাদের প্রতিটা হেডকোয়াটারের সাথে প্রতিটা হেড কোয়াটারের একটা কন্টিনিউস সংযোগ থাকে সব সময় । যখনই কোন সংযোগ বন্ধ হয়ে যায় তাহলে আশে পাশের সব কোয়ার্টারে খবর চলে যায় । সব এজেন্টদের কাছে খবর চলে যায় । ওরা চলেছে, রাইট?

মিমি কোন কথা বলল না । কারণ হঠাৎ পরিস্থিতি বদলে গেছে । অনেক কয়জন লোক এসে হাজির হচ্ছে । এতো গুলো মানুষের সাথে ওরা যুদ্ধ করে নাও পারতে পারে । আর যুদ্ধ যদি শুরু হয় তাহলে ক্ষয় ক্ষতি হবেই । দুই পক্ষের মানুষই মারা পড়বে । এটা মিমি মোটেই যায় না। 

মিমি ওর সাথিদের দিকে তাকিয়ে বলল, এদের কে বেঁধে রাখো। তারপর চল ভেতরে ! আমাদের হাতে সময় নেই একদম । 

মিমির কথা মত কাজ হল । তবে আরিয়ানাকে ওরা সাথে নিল । 

আরিয়ানাকে অবশ্য বলে দিতে হল যে বেজমেন্টটা কোথায় । মিমির মনে হল ও যেন ঠিক ঠিক জানে কোন পথে ওকে যেতে হবে । ঠিক সেই পথেই ও এগিয়ে চলল। এক সময়ে ঠিক বেজমেন্টের দরজার সামনে এসে থামল । 

দরজা খোল !

মিমির হুকুম পাওয়া মাত্রই দুইজন এগিয়ে দরজা খোলার চেষ্টা করল। অনেক দিন দরজার না খোলার কারণে সেটা জ্যাম হয়ে আছে । তবে ভ্যাম্পায়ারদের শক্তির কাছে এক সময়ে পরাজিত হল । দরজা খুলে গেল । 

সবাইকে নিয়ে যখন ঘরের ভেতরে প্রবেশ করল তখন ওরা যা ভেবেছিল তেমন কিছুই দেখা গেল না ।  

পুরো বেজমেন্ট একেবারে ফাঁকা ।

কিছু নেই সেখানে। 

আরিয়ানা এর আগে এই বেজমেন্টে প্রবেশ করে নি । সেও আশা করেছিল যে এখানে হয়তো সে এখানে কিছু না কিছু দেখতে পাবে । তবে এখানে কিছু নেই । পুরো বেজমেন্ট ফাঁকা । 

সবাই খানিকটা দ্বিধান্বিত হয়ে গেল । এখানে কিছু নেই । 

মিমি নিজেও খানিকটা সময়ে যেন কিছু যেন বুঝতে পারল না। ওর একটা ধারণ ছিল । ঠিক ধারণা না, ওর একটা বিশ্বাস ছিল যে রায়ানের কফিন সে এখানেই দেখতে পাবে । এতো তীব্র ভাবে অনুভব করতে পারছিল । এমন কি এখনওসে এটা বুঝতে পারছে । কিন্তু চোখের সামনে সে কাউকে দেখতে পাচ্ছে না । কিন্তু অনুভূতি তীব্র এখনও । সেই প্রথম দিন থেকে এই কলারটা গলাতে দেওয়ার পর থেকে যেমন টা মনে হয়েছিল, এখনও সেই অনুভূতি হচ্ছে । যেন সে আছে এখানেই !

-কোথায় সে !

-এখানেই আছে !

-কোথায়?

-মেঝের নিচ ! আই ক্যান ফিল ইট !

এরপর মিমি পুরো ঘর জুড়ে হাটতে লাগল । তারপর একটা স্থানে দাঁড়িয়ে গেল । এখানেই আছে । 

মেঝে খোদাই কর !

কিন্তু খোদাইয়ের জন্য আশে পাশে কোন যন্ত্র দেখা গেল না । ওরা সাথে করে কোন কোদাল বা বেলচা নিয়ে আসে নি । এমন কিছু দরকার যা ওদের মেঝে খুড়তে হবে। তবে আশার কথা হচ্ছে এটা কোন কনক্রিটের নয় । 

তবে ঝামেলা তখনই বাঁধল । বাইরে গিয়ে যে কিছু নিয়ে আসবে সেটার সময় ওরা পেল না । তার আগেই উপর থেকে মানুষের আওয়াজ শোনা গেল । ওরা চলে আসছে ।  

বেজমেন্টের দরজা বাধ্য হয়ে বন্ধ করে দিতে হল । 

-তোমরা আটকা পরেছো । 

কথাটা বলল আরিয়ানা । 

-এই দরজার ওরা ভেঙ্গে ঢুকতে পারবে না । এমন ভাবেই তৈরি । 

-ভুলে যাচ্ছো কেন যে তোমরা বেরও হতে পারবে না । আর দিনের আলোতে আরও বার হতে পারবে না । তোমরা পুরোটা সময় এখানেই আটকে থাকবে । আর উপরে আমাদের লোক তোমাদের জন্য অপেক্ষা করছে । কিভাবে বের হবে বল ? 

ঠিক সেই সময়ে দরজার ধাক্কা পড়ল । কেউ যেন কিছু দিয়ে সেখানে আঘাত করল । মিমি সেদিকেই তাকিয়ে রয়েছে । ওরা আসলেই আটকা পড়েছে । অনেকটাই ফাঁদে পড়েছে । ওরা এখান থেকে কিভাবে বের হবে?

আবার দরজার আঘাত পড়ল । 

আরিয়ানা এতো সময় সত্যিই ভয় নিয়ে ছিল । মনে হচ্ছিল যেন সত্যিই বুঝি রায়ান জেগে উঠবে এবার। আর একবার যদি সে জেগে উঠে তাহলে না জানি কী হবে।  তবে এখন ওর মন থেকে সেই ভয়টা গায়েব হয়ে গেছে । যদিও ওর ভ্যাম্পায়ারদের সাথেই আটকা পড়েছে। তার পরেও ওর মনে হচ্ছে যে কোন ভয় নেই । এবারের মত বিপদ কেটে গেছে ।

কিন্তু তার মনের কথা মনেই রয়ে গেল । দরজাতে আগের থেকেও জোড়ে আওয়াজ হল । নিশ্চিত ভাবেই ওরা হ্যান্ড গ্রেনেডের ব্যবহার করছে । যে কোন ভাবেই তারা দরজা ভেঙ্গে ফেলতেই চায় । যদি সত্যিই দরজা ভেঙ্গে ফেলে তাহলে দুই পক্ষের ভেতরে এবার একটা যুদ্ধ ঠিকই বাধবে এবং তাতে যে ক্ষয় ক্ষতি হবে সেটা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই । 

এমন চিন্তা যখন আরিয়ানার মনে আসছিল তখনই একটা অবাক করার ঘটনা ঘটলো । আরিয়ানা দেখলো যে কয়জন ভ্যাম্পায়ার ঘরের ভেতরে ছিল তারা হাত দিয়েই মাটি খুড়তে শুরু করেছে । কেউ বা নিজের পকেট থেকে মোবাইল কিংবা চাবির রিং দিয়ে সেই কাজ শুরু কর দিয়েছে । এবং আরিয়ানা তীব্র বিস্ময় নিয়েই খেয়াল করে দেখল যে চারজন মিলে খুব দ্রুতই সেই কাজ এগিয়ে নিয়ে চলল । 

এদিকে আঘাতের পর আঘাত হতে চলল দরজায় অন্য দিকে হাত, মোবাইল আর চাবির রিং দিয়েই মাটি খোদায় । কোণটা আগে শেষ হবে?

ওরা দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকবে নাকি এরা মাটি খুড়ে তাদের রাজার কফিন বের করবে?

আগের পর্বপরের পর্ব

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 4.8 / 5. Vote count: 11

No votes so far! Be the first to rate this post.

About অপু তানভীর

আমি অতি ভাল একজন ছেলে।

View all posts by অপু তানভীর →

2 Comments on “দ্যা স্লিপিং কিং (পর্ব পাঁচ)”

    1. আমার আসলে গত কয়েক মাস ধরে অনেক ব্যস্ততা যাচ্ছে । শান্তি মত বসতে না পারলে আমার আবার গল্প লেখা হয় না।

Comments are closed.