স্পেশাল পহেলা বৈশাখ, আমার প্রথম প্রেম যেভাবে শুরু হয়েছিলো

4.9
(7)

প্রতিবার পহেলা বৈশাখ এলেই আমার কেবল এই ঘটনা মনে পড়ে । আমার প্রথম প্রেম শুরু হওয়ার গল্প । গত ভালবাসা দিবসে আমি আমার প্রেমিকা চলে যাওয়ার গল্প বলেছিলাম । আশা করি সেটা সবারই মনে আছে । এই গল্পটা আসলেই সেই গল্পের গল্পেরই শুরু । অর্থ্যাৎ আমার প্রথম প্রেমিকার সাথে আমার প্রথম প্রেমটা কিভাবে শুরু হয়েছিলো সেটা ।

ধরে নিই আমার আমার প্রথম প্রেমিকার নাম নিশি । নিশিকে আমি প্রথম দেখি যখন ক্লাস সেভেনে পড়ি । প্রথম দেখাতেই প্রেম যাকে বলে । তবে তখন সেই সুযোগ ছিল না কোন ভাবেই । আমি আবার বরাবরই বড়ই লজ্জাশীল মেয়েদের ব্যাপারে । অর্থ্যাৎ মেয়েদের সাথে ঠিকঠাক মত কথা বলতে পারি না । তাই তার পেছনে ঠিকমত ঘুরতে পারি নাই । সেই ছোট বেলার প্রেম মনের ভেতরেই রয়ে গেল বহুদিন ।

ক্লাস সেভেন আইচ নাইন পার করে উঠলাম ক্লাস টেন । আমাদের স্কুলটা কম্বাইন হলেও ছেলে ও মেয়েদের ক্লাস রুম ছিল আলাদা । কিন্তু ক্লাস টেনে এসে আমাদের একই ক্লাস রুমে ক্লাস শুরু হল । প্রতিটা দিন তখন বড় রঙ্গিন মনে হত । এরই ভেতরে একদি আমারই এক কাছের বন্ধু জানালো যে সে প্রেম শুরু করে দিয়েছে ক্লাসেরই আরেক মেয়ের সাথে । সেই মেয়ে আবার নিশির ঘনিষ্ঠ বান্ধবী । বন্ধুর প্রেমের কথা শুনেই বুঝি এতো দিন মনের ভেতরে লুকায়িত থাকা সেই প্রেমটা জেগে উঠলো । বন্ধুর কাছে মনের কথা বলে দিলাম । বললাম যে ক্লাসের নিশিকে আমি সেই কবে থেকে পছন্দ করি । সম্ভবত এই কথা সে তার প্রেমিকার কাছেও পাস করে দিয়েছিলো এবং খবর পৌছে গেল নিশির কাছে ।

তারপর একদিন আমার কাছের দুএকজন বন্ধুর মাধ্যমে খবর এল যে নিশিও প্রেমের সম্পর্ক করতে প্রস্তুত তবে একটাই শর্ত যে আমাকে আগে প্রেম নিবেদন করতে হবে । আমি তো এক পায়ে খাড়া ! এক টিফিন প্রিয়ডে একটা রুমাল একটা চিঠি লিখে পাঠিয়ে দিলাম । আমি তো নিশ্চিত জানি যে আজ থেকেই সে আমার প্রেমিকা হয়ে যাচ্ছে । এতো দিনের মনের ভেতরে সে ইচ্ছে ছিল সেটা আজকে পুরণ হতে যাচ্ছে ।
কিন্তু ওমা ! কিছু সময় পরেই তার বান্ধুবী দুজন রুমাল আর চিঠি ফেরৎ দিয়ে বলল যে নিশি এখন প্রেমের কথা ভাবছে না । আমি যেন আকাশ থেকে পড়লাম । কী বলে এই মেয়ে ! এই না বলল যে আমি প্রেম নিবেদন করলেই সে রাজি হয়ে যাবে !
পরে আসলে জেনেছিলাম যে নিশি এই ব্যাপারে কিছু জানতো না । আমার বন্ধুরা মিলে এই প্লান করেছিলো । তাদের একটা ধারণা ছিল যে আমি প্রেম নিবেদন করলে নিশি রাজি হয়ে যাবে কিন্তু নিশি রাজি হল না ।

টিফিন প্রিরিয়ডে প্রেম নিবেদন করে ছ্যাঁকা খেলাম। ছুটি হতে না হতে পুরো স্কুল এই কথা জেনে গেল । আমি লজ্জা্য আর নেই । সময় টা সম্ভবত ছিল মার্চের শেষের দিকে । এরপর আরও নানান ঘটনা । এতো কথা ঠিক মনেও নেই । তবে আগেকার দিনের প্রেমিক প্রেমিকাদের মাঝে হাত কেটে রক্ত বের করার একটা রীতি ছিল । আমিও সেই একই রীতি ফলো করলাম । কয়েকটা কাগজ গেল আবারও ।

এরপর নিশির এক বান্ধবীর ছোট ভাইয়ের জন্মদিনে আমাদের কয়েকজনের দাওয়াত পড়লো । যাবো না যাবো না করেও হাজির হলাম ।সে দিন ঠিক হল যে পহেলা বৈশাখে আমাদের বাসায় তারা যাবে । ততদিনে শুনেছি যে নিশির মন নাকি খানিকটা গলেছে । এটা একটা গ্রিন সিগনাল ।

যথারীতি ১৪ই এপ্রিল এল । সকাল সাড়ে দশটার দিকে তারা চারজন আমাদের বাসায় এসে হাজির । সাথে আমার তিন বন্ধুও ছিল । খাওয়া দাওয়া নাস্তা চলল, আড্ডা চলল । এরই মাঝে এলো সেই সময় । তার এক বান্ধবী আমাকে ডেকে বলল যে নিশি আমার সাথে আলাদা কথা বলতে চায় ।

তাকে নিয়ে বারান্দায় বসলাম । সে জানতে চাইলো যে তোমার কি বলা আছে বল । আগেই বলেছি যে আমি কথা বলার ব্যাপারে বেশ লজ্জাশীল । তাই শত চেষ্টা করেও বলতে পারলাম না । তারপর বলল যে লিখে দেই?
সে সম্মতি জানালো । আমি লিখেই তাকে আবারও প্রেম নিবেদন করলাম । এইবার গতবারের মত হল না । সে রাজি হল ।

ঘটনা সেখানেই শেষ না । আমরা ঘরে ফিরে এলাম আর সোফার উপরেই বসলাম । সোফার পাশে রাখা একটা ছোট বক্স টেবিলের ড্রায়ার খুলে হঠাৎ একটা এন্টিকাটার বের করলাম। কেন করলাম আমি নিজেও জানি না । নিশি আমার দিকে তাকিয়ে বলল, এই কাটার দিয়েই হাত কেটেছো?
আমি বললাম হ্যা ।
ঘটনা সত্যি ছিল ।
সে বলল, এখন কাটো দেখি !

ব্যাপার একটা একবার ভাবেন । সদ্য হওয়া প্রেমিকা আমাকে বলছে তার সামনে হাত কাটতে । ডান হাতে কাটারটা ধরে বাঁম হাতের উপরে এক টান দিলাম ।
এই এন্টিকাটার গুলো নিশ্চয়ই চেনেন । তীব্র ধার যুক্ত ব্লেড । দেড় ইঞ্জি মত কেটে গেল । একেবারে সাদা মাংস বের হয়ে গেল । সেদিন আমার কেমন ব্যাথা লেগেছিলো সেটা আমার এখন আর মনে নেই । তবে নিশি যে দৃষ্টি নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে ছিল সেটা এখনও মনে আছে । এবং সেই কাটা দাগ এখনও আমার হাতে রয়েছে । ছবি যুক্ত করে দিলাম ।

মোটামুটি এই হচ্ছে আমার পহেলা বৈশাখের চমৎকার এক স্মৃতি । এটা কোন দিন ভোলা যাবে না মনে হয় !

সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা । সেই সাথে রমজান মোবাকর ।
আপনাদের দিন শুভ হোক !

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 4.9 / 5. Vote count: 7

No votes so far! Be the first to rate this post.

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *