দ্যা ম্যাও প্রিন্সেস

4.8
(38)

সকাল বেলা রাফিক ভাইয়ের ফোনে ঘুম ভাঙ্গলো । অফিসের কাছেই আমি বাসা নিয়েছি তাই একটু বেলা করে আমি ঘুমাতে পারি । অফিসে ঢুকতে হয় সকাল দশটার আগে । আমি সাড়ে নয়টা পর্যন্ত ঘুমাই শান্তিমত । রফিক ভাইয়ে ফোন পেয়ে যখন ঘুম ভাঙ্গলো তখন তাকিয়ে দেখি নয়টা তখনও বাজে নি । একটু বিরক্ত হলেও কিছু বললাম না । হ্যালো বলতেই ওপাশ থেকে রফিক ভাইয়ের উত্তেজিত কন্ঠস্বর শুনতে পেলাম !
-ফয়সাল কোথায় তুমি ?
ইচ্ছে হল বলি যে তাজিংডংয়ের উপরে আছি । মেঘ দেখতে আসছি । এই অপ্রয়োজনীয় প্রশ্ন করার মানে কী আমি আজও ঠিক বুঝতে পারি না । মানুষ যে প্রশ্নের উত্তর আগে থেকে জানে সেই প্রশ্ন কেন করে ? রফিক ভাই খুব ভাল করেই জানে যে জীবন মরন সমস্যা না হলে এই সময়টা আমি সব সময় বিছানাতে থাকি ।
আমি বিরক্ত চেপে বললাম, যেখানে থাকি !
-আরে মিয়া উঠো জলদি ! খবর শুনছো নাকি?
-কিসের খবর?
-আরে মিয়া এমডি বদলাইয়া গেছে !

বলেই রফিক হেহ হে করে উঠলো । আমার ঘুম চলে গেল সাথে সাথেই । আমার কান সোজা করে বললাম, কে হয়েছে নতুন এমডি?
-গেস কর?
-কে?
রফিক ভাই বলল, টিভি চালু কর। তাহলেই বুঝতে পারবে নতুন এমডি কে হইছে !

আমি দেরি না করে টিভি চালু করলাম ! সাথে সাথেই চমকে গেলাম ।

যে কয়টা বাংলা চ্যানেল ঘুরলাম প্রতিটার সংবাদই একই খবর দেখাচ্ছে ! কয়েক মিনিট খবরের দিকে তাকিয়ে রইলাম একভাবে ।

দেশের বিখ্যাত শিল্পপতি রশিদ আরমানের বড় ছেলে রিগু আরমানের বিভৎস মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে বুড়িগন্ধা থেকে । রিভু আরমান মানে তার মেঝ সন্তান পলাতক । তাকে আজ সকালের ফ্লাইটে জার্মানি চলে যেতে দেখা গেছে । দুইয়ে দুইয়ে চার মেলাতে কারো কষ্ট হয় নি । সম্ভবত বড় ভাইকে খুন করে সে বিদেশ পালিয়ে গেছে । এখন থাকে এক মাত্র ছোট মেয়ে রিয়ানা আরমান । খুব পরিস্কার ভাবেই রিয়ানা আমাদের কোম্পনীর নতুন এমডি হতে চলেছে !

আসলে বেশ কয়েকদিন ধরেই তিন ভাই বোনের ভেতরে একটা দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো যে কে বসবে কোম্পানীর এমডির পদে । তাদের বাবা অর্থ্যাৎ আমাদের চেয়ারম্যান সাহেবও কোন সিদ্ধান্ত জানাচ্ছিলেন না । কেমন একটা লুকোচুরি খেলছিলেন । আমার কাছে মনে হচ্ছিলো যে তিনি নিজেও ঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না । বিশেষ করে তিনজনই যখন সমান দাবিদার ।
ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব দিয়ে রেখেছিলেন বড় ছেলেকে । তবে সে বলেছিলেন যে খুব জলদিই জানাবেন যে স্থায়ী ভাবে কে এমডি পদে বসবেন !

কিন্তু রিগু আরমান যে খুন হয়ে যাবে সেটা আমরা কেউ ভাবতেও পারি নি । আর যেহেতু রিভু মিয়া পালিয়েছে খুব স্বাভাবিক ভাবেই ধরে নেওয়া যায় সে সেই অকাজটা করেছে । ফাঁক তালে রিয়ানা ম্যাডামের লাভ হয়ে গেল । তবে কেন জানি ব্যাপারটা আমার কাছে ঠিক হজম হল না ।

আমাদের চেয়ারম্যানের দুইটা বিয়ে । প্রথম পক্ষের সন্তান হল দুই ভাই । আর দ্বিতীয় পক্ষের সন্তান হচ্ছে রিয়ানা । খুব স্বাভাবিক ভাবেই দুই ভাইয়ের ভেতরে মিলটা বেশি ছিল । দ্বন্দ্ব যখন শুরু হয় তখন স্পষ্টই দুই ভাই মিলে রিয়ানাকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলো কোম্পানী থেকে । কিন্তু এখন দেখছি দুই ভাইয়ের লড়ায়ে লাভ হল রিয়ানার !

আমি হাত বাড়িয়ে মিউকে খুজতে শুরু করলাম । রাতে সে আমার সাথেই ঘুমিয়েছিলো । পুরো রুমের ভেতরে চোখ বুলিয়ে দেখলাম সে নেই । নিশ্চিত ভাবেই গায়েব হয়ে গেছে । প্রতিদিনের মত আজও সে একই কাজ করেছে । রাতে আসে যখন আমি অফিস থেকে বাসায় আসি । সারারাত আমার গা ঘেষে ঘুমিয়ে থাকে । তারপর সকাল হলে আবার চলে যায় !

আমি জলদি জলদি উঠে পড়লাম । আজকে আজকে একটু আগে আগে অফিস যেতে হবে । এমডি বদলেছে সুতরাং অনেক কিছু বদলে যাবে ! আমাকে আগে আগে যেতে হবে ।

রশিদ আরমানের ব্যাপারটা আমার কাছে বরাবরই একটু যেন কেমন মনে হয়েছে । লোকটার ভেতরে রুক্ষতার পরিমানটা অনেক বেশি । মায়াদয়া কম । তার বড় ছেলে মারা গেছেন সেটা সেটা তার মুখের ভাব কিংবা কথায় বিন্দু মাত্র প্রকাশ পেল না । বরং দুপুর একটার সময়ে সে কোম্পানীর নতুন এমডি ঘোষণা দিলেন ।
রিয়ানা আরমান ।

তিনটার ভেতরে কোম্পানীর ওয়েব সাইটে সকল মেম্বারদের নামের তালিকা প্রকাশ পেল । আমরা এটা আগে থেকেই জানতাম যে রিয়ানা যখন নতুন এমডি হবে তখন বেশ কিছু রদ বদল হবে । কয়েকজন চাকরিও হারাবে । রিগু আরমান যখন কোম্পানী চালাচ্ছিলো তখন তার কিছু পছন্দের এপ্লোয়ী ছিল । তাদের সবাইকে ছাটাই করা হল । কয়েকজনকে পদন্নোতি দেওয়া হল । সেই সাথে কয়েকজনকে নামিয়ে দেওয়া নিচের পোস্ট ।

কিন্তু সব থেকে অবাক করা ব্যাাপর হচ্ছে আমার নাম কোথাও নেই । এটা আমি ঠিক বুঝতে পারলাম না । আমাদের কোম্পানির ওয়েব সাইটেই প্রতিটি এম্প্লোয়ীর নাম সেই সাথে কার কি দায়িত্ব সব কিছু প্রকাশ করা থাকে । নতুন ভাবে প্রকাশিত দায়িত্ব সবার নতুন দায়িত্ব পেয়েছে । যারা যারা চাকরি হারিয়েছে তাদেরকে নামের নিচে এক্সপেল লেখা । কিন্তু এই সবের মাঝে আমার নাম একদম নেই । না আমার পদউন্নতি হয়েছে, না আমাকে বাদ দেওয়া হয়েছে । তবে আমার আগের যে পোস্ট টা ছিল সেখানে ঠিকই একজন নিয়ম দেওয়া হয়েছে ।

আমি কি করবো ঠিক বুঝতে পারলাম না । রফিক ভাই আমাকে সান্তনা দিয়ে বললেন যে কোন চিন্তা যেন আমি না করি । সে আমার ব্যাপারটা নিয়ে রিয়ানা ম্যাডামের সাথে কথা বলবে । রিয়ানা ম্যাডাম অফিসে নেই আপাতত । কাল আসলেই এই ব্যাপারে কথা বলবেন। তার কথায় এখন বেশ মূল্য । রফিক ভাইকে এজিএম করা হয়েছে । আমি মন খারাপ নিয়ে বেশ কিছু সময় বসে রইলাম । তারপর টেবিল পরিস্কার করে বাসায় চল এলাম । আমার কি কাজ ওখানে । সম্ভবত চাকরি চলেই গেছে আমার ।

ঘরে ঢুকতেই দেখি সোফার উপরে মিউ বসে রয়েছে চুপচাপ । টিভি চলছে । আমি একটু মনে করার চেষ্টা করলাম যে যাওয়ার সময় কি আমি টিভি চালু করে গিয়েছিলাম ! মনে করতে পারলাম না । অবশ্য সেটা নিয়ে আর খুব একটা ভাবলামও না । এগিয়ে এসে মিউকে কোলে তুলে নিলাম । ওর নরম তুলতুলে শরীরে হাত দিতেই আমার মনটা ভাল হয়ে গেল অনেকটাই । আমার আদর পেয়ে মিউ যেন আরাম পেল । মিউ মিউ করে ডেকে উঠলো ।
আরও আদর পেতে চাইছে । আমি মুখের কাছে নিয়ে ওর কপালে একটু চুমু খেলাম । একটা অদ্ভুত সুন্দর গন্ধ আসছে ওর শরীর থেকে । এই সেন্ট টা ওর শরীরে সম্ভবত ন্যাচারালি তৈরি হয় । আমি ওকে গোসল করাই ঠিকই তবে কোন আলাদা সুগন্ধী মাখিয়ে দেই না । আলাদা ভাবে এটা কোথা থেকে আসে কে জানে । আমি ওকে আরও একটু আদর করলাম । তারপর বলল, জানিস মিউ আজকে আমার চাকরি চলে গেছে !
সে বলল, মিউ !
-সত্যি । আমি বুঝতেই পারলাম না আমি কী করলাম । আমাকে তো রিয়ানা ম্যাডামের চেনার কথা না । এমন কি আমি কোন তার ভাইদের দিকের লোকও না । আমার কি মনে হয় জানিস, কেউ আমার নামে তার কানে কিছু বলেছে ।
-মিউ ।
-নাহ ! আমি আর যাবো না । চাকরির জন্য মোটেও তেল দিবো না । নতুন চাকরি পেয়ে যাবো । আর হাতে হাতে বেশ কিছু টাকা জমানো আছে । ৪/৫ মাস এমনিতেই চলে যাবে । –
-মিউ ।
আমি বললাম, দাড়া আমি গোসল করে আসি । তারপর আজকে তোর সাথে সেই গল্প করবো ।

আমি বাসায় একাই থাকি । কাজের একটা লোজ আছে রান্না করার জন্য । আমি যখন অফিসে থাকি সে এসে রান্না করে দিয়ে যায় । তার কাছে চাবি রাখা আছে । তাই কাপর চোপড় বদলানো, ওয়াশরুমে যাওয়া এগুলোর সময় আমি খুব একটা দরজা আটকাই না । আজও আটকাই নি ।

সম্পূর্ন কাপড় ছেড়ে গোসল পরার সময় খেয়াল হল মিউ এসে দাড়িয়েছে দরজার কাছে । একভাবে আমার দিকে তাকিয়ে রয়েছে । এই ব্যাপারটা এই বেড়ালের ভেতরে খুব আছে । আমার সাথেই সে প্রতিবার গোসল করে । আমি হাত বাড়িয়ে ডাক দিতেই সে দৌড়ে চলে এল ঝর্ণার নিচে । দুজন মিলে বেশ লম্বা সময় ধরে গোসল করে বের হলাম।

পরের দিন আমার অফিস যাওয়ার কোন তাড়া ছিল না । তাই মোবাইলের এলার্ম বন্ধ করে ঘুমালাম । রাতে একটু দেরি করেই ঘুমিয়েছিলাম । যেহেতু সকালে কোথাও যাওয়ার তাড়া নেই । ঠিক করেছিলাম যে সকালের আর দুপুরের খাবার এক সাথে খাবো কিন্তু আমাকে জেগে উঠতে হল ।
আমার ঘুম খুব বেশি গাঢ় না । একটু শব্দ হলেই আমি জেগে উঠি । আজকে জেগে উঠলাম ফোনের শব্দে । কোন মতে স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে দেখি সেখানে কোন নাম্বার নেই । লেখা প্রাইভেট নম্বর ।
ঘুম চোখে একটু অবাক হতে হল । পাশের দেশ ইন্ডিয়াতে এই ভিআইপি নম্বরের প্রচলন আছে ! আমাদের দেশেও আছে, সেটা তো জানা ছিল না । আমি ফোন রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে একটা মেয়ের গলা শুনতে পেলাম ! কোন প্রকার সম্মোধব ছাড়াই সে বলল, আপনার অফিসে আসার কথা দশটার আগে ! ইতিমধ্যে এগারো মিনিট লেট আপনি !

আমার ঘুম ছুটে গেল সাথে সাথেই । আমি কোন দিন রিয়ানা ম্যাডামের সাথে সরাসরি কথা বলি নি । কিন্তু আমি তার কন্ঠে চিনে ফেললাম সাথে সাথেই । এই মেয়ে আমাকে কেন ফোন দিয়েছে !
নিজে ফোন দিয়েছে !
খাইছে আমারে !
আমি কোন মতে বললাম, আসলে ম্যাম আমার তো চাকরিই নেই !
-কে বলেছে যে নেই?
-আসলে বোর্ডে আমার নাম নেই তো !
-আর ইউ সিওর ?

আমি দ্বিধায় পড়ে গেলাম । কালকে অফিস থেকে আসার পরে আমি আর বোর্ড চেক করি নি । হয়তো বিকেল কিংবা রাতের বেলা আমার নাম এন্ট্রি করা হয়েছে । আমি কী বলবো খুজে পেলাম না । ওপাশ থেকে আবারও তার কন্ঠস্বর শুনতে পেলাম ।
-আপনাকে আধা ঘন্টা সময় দিলাম । এর ভেতরে আমার কেবিনে হাজির হবেন ।

লাইণ কেটে গেল !

ফোন কাটার পরেও আমি কিছুটা সময় চুপ করে বিছানাতেই পড়ে রইলাম । আমার ঠিক বিশ্বাস হল না যে রিয়ানা ম্যাডাম আসলেই আমাকে ফোন দিয়েছে । নিজে ফোন দিয়েছে ! নাকি আমি ঘুমের ভেতরেই স্বপ্ন দেখলাম এতো সময়ে ।
কিন্তু দুই মিনিট পরে বুঝতে পারলাম যে আমি আসলেই স্বপ্ন দেখছিলাম না । রিয়ানা আরমান সত্যিই সত্যিই আমাকে ফোন দিয়েছিলো । আমি আর দেরি করলাম না । অফিস আমার বাসার কাছেই । তাই তৈরি হয়ে সেখানে পৌছাতে আমার খুব একটা বেশি সময় লাগলো না ।

রিয়ানা আরমানের কেবিনের সামনে এসে কিছু সময় চুপ করে দাড়িয়ে রইলাম । অনুভব করতে পারছিলাম যে বুকের ভেতরে একটা অচেনা অনুভূতি হচ্ছে । খানিকটা ভয়ভয়ও করছে । এই কেবিনের ভেতরে আমি কোন দিন ঢুকি নি । কোন দিন ঢোকার সুযোগ আসবে সেটাও কোন দিন ভাবি নি । যদিও আমি এখনও ঠিক জানি না যে আমি এর ভেতরে ঢুকে কী করবো আর আমাকে এখানে কেনই বা ডাকা হয়েছে !

আমি বড় একটা দম নিয়ে ভেতরে ঢুকে পড়লাম । ঢুকতেই দেখি রিয়ানা আরমান একেবারে আমার দিকেই তাকিয়ে রয়েছে । যেন তিনি জানতেনই আমি ঠিক এই সময়েই ঘরে ঢুকবো । আমার অবশ্য কেবিনে ঢোকার আগে একবার নক করা দরজার ছিল ।
রিায়ানের চোখে সানগ্লাস নেই । আর আগে আমি তাকে যতবার দেখেছি ততবার তার চোখে কালো সানগ্লাস দেওয়া ছিল । আজকে তার চোখ আমি সরাসরি দেখতে পাচ্ছি ।

আমার দিকে একভাবে তাকিয়ে রয়েছে । আমি কিছুতেই সেই অদ্ভুত সুন্দর চোখ থেকে নিজের চোখ সরিয়ে নিতে পারলাম না । একভাবে তাকিয়ে রইলাম সেদিকে । হাকলা নীল চোখ !

আমাদের দেশের মেয়েদের চোখের রঙ সাধারনত কালো কিংবা হালকা খয়েরী হয় । নীল চোখ আগে দেখেছি বলে মনে পড়লো না । অথবা এমন হতে পারে রিয়ানা আরমান চোখে কন্ট্যাক্ট লেন্স পরেছে । ইদানীং অনেকেই এমনটা পড়ে । আমার মনের কথা রিয়ানা কিভাবে বুঝে গেল আমি জানি না । সে আমার দিকে তাকিয়ে শান্ত চোখে বলল, আমি কন্ট্যাক্ট লেন্স পরি না !

আমি কথাটা শোনার সাথে সাথ চমকে গেলাম । এই মেয়ে কিভাবে জানলো যে আমি তার নীল চোখের কথাই ভাবছি ! আবারও আমার মনের কথা যেন সে বুঝতে পারলো । বলল, কীভাবে বুঝলাম এই ভাবছেন তো ! এটাই স্বাভাবিক না ? যেই আমার চোখ সরাসরি দেখে সবার আগে ভাবে যে আমি হয়তো কন্ট্যাক্ট লেন্স পরেছি । কারণ এই দেশের মেয়েদের চোখের রং নীল হয় না । তাদের অবাক হওয়ার চোখের দিকে তাকিয়ে আমি বুঝতে পারি । যাই হোক আসুন ! বসুন আমার সামনে !

আমি ধীর পায়ে তার সামনে গিয়ে বসলাম । মনের ভেতরে তখনও কেমন যেন মনে হচ্ছে । এই অনুভূতির কোন ব্যাখ্যা নেই । আমার কেবল মনে হচ্ছে যে সামনে বসা এই মেয়েটির ভেতরে কিছু একটা অস্বাভাবিকত্ব রয়েছে । কিন্তু কী সেই অস্বাভাবিকত্ব সেটা আমি ধরটে পাচ্ছি না । আমি রিয়ানা আরমানের দিকে তাকিয়ে রইলাম আরও কিছু সময় । অথবা বললে ভাল হয় যে আমি বাধ্য হয়ে তাকিয়ে রইলাম তার দিকে । কিছুতেই আমি আমার চোখ সরিয়ে নিতে পারি নি ।

রিয়ানা বলল, আপনার নতুন পোস্ট সম্পর্কে কোন কিছু বলার আছে কি?
আমি বললাম, আসলে আমি জানিই না যে আমার পোস্ট টা কি?
রিয়ানা হাসলো । তারপর একটা খাম আমার দিকে এগিয়ে দিল । খামটা খুলতেই আমার চোখ কপালে উঠলো । আমাকে এমডির পিএস বানানো হয়েছে । আমার অবাক হওয়ার ব্যাপারটা যেন রিয়ানা খুব উপভোগ করছে । তার মুখের হাসির দিকে তাকিয়েই আমি সেটা খুব ভাল করেই বুঝতে পারছিলাম । আমার মাথায় ঠিক এমন কিছু আসছিল না যে আমি এমন কী করলাম যে আমাকে হঠাৎ করেই রিয়ানা তার পিএস বানিয়ে দিল !
কিছু একটা কারণ তো আছেই । আমাকে সেই কারণটা খুজে বের করতে হবে !

আমার আগের সেই সুখের দিন আর রইলো না । আমি যেমন আগে অফিস শুরু হওয়ার ঠিক আধা ঘন্টা আগে উঠতাম, অফিসে আসতাম এখন আর সেটা হচ্ছে না । আমাকে উঠতে হয় বেশ আগেই । আমার বাড়ির কাছে গাড়ি এসে উপস্থিত হয় । সই গাড়িতে চড়ে আমাকে গিয়ে হাজির হতে হয় রিয়ানা ম্যাডামের বাসায় । সেখান থেকে তাকে নিয়ে আসতে হয় অফিসে । তারপর সারাদিন তার সাথেই ঘোরাঘুরি । রাতে একেবারে তাকে বাসায় দিয়ে এসে আমাকে বাসায় আসতে হয় । অবশ্য গাড়ি আমাকে বাসা পর্যন্ত পৌছে দেয় ! বাসায় এসে আমার ক্লান্তিতে শরীর ভরে ওঠে । অবশ্য বাসায় আসার আগেই দেখি মিউ সোফার উপরে বসে রয়েছে । আমি ঘরে ঢুকতেই সে দৌড়ে আমার কাছে চলে আসে । আমার কাছ থেকে কিছু সময় আদর নেয় । তারপর শোবার ঘরের দিকে চলে যায় । এটা হচ্ছে তার সাথে এখন ঘুমাতে হবে সেই ইঙ্গিত ! আমিও, ফ্রেশ হয়ে, খাওয়া দাওয়া শেষ করে শুয়ে পড়তাম । এভাবে কিভাবে মাস খানেক পার হয়ে গেল সেটা টেরই পাই নি ।

তারপরই একদিন নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটলো । সেদিন রিয়ানা ম্যাডামকে বাসায় রেখে আমিও বাসার দিকে রওয়ানা দিলাম । মাঝ পথেই গাড়িটা কেমন যেন করে উঠলো । কিছুদুর গিয়েই গাড়িটা থেমে গেল । আমার বাসা থেকে তখনও গাড়িটা একটু দুরে । গাড়ি ঠিক হতে কত সময় লাগবে কে জানে, আমি এই ভেবেই গাড়ি থেকে নেম পড়লাম । এখান থেকে বাসায় হেটে যেতে খুব বেশি হলে মিনিট বিশেষ লাগবে । আর পথে যদি রিক্সা পেয়ে যাই তাহলে তো আরও কম সময় লাগবে ।

গাড়ি থেকে নেমে হাটা দিবো তখনই ড্রাইভার বলল, স্যার গাড়ি থেকে নাইমেন না । ঠিক হয়ে যাইবে এখনই !
-আরে সমস্যা নেই । এখান থেকে হেটে যেতে খুব বেশি সময় লাগবে না !
-ম্যাডাম আমারে কইছে আপনেরে বাসার সামনেই নামায়ে দিতে । আগে যেন না নামিয়ে দেই !
-তোমার ম্যাডামকে বলার দরকার নেই । তাহলেই তো হল ! কোন চিন্তা কর না । তুমি গাড়ি ঠিক করে চলে যাও । ম্যাডাম কিছু জানতে চাইলে বলবে যে আমাকে নামিয়ে দিয়েই গেছো । আমিও তাই বলবো । ব্যাস !

আমি আর দাড়ালাম না । গাড়ি থেকে নেমে হাটা দিলাম । আমার কাজটা যেন ড্রাইভার মজিদের মোটেও পছন্দ হল না । তবে সে আমাকে বাঁধাও দিতে পারলো না । আমি আপন মনে হাটতে শুরু করলাম । যদি কোন রিক্সা নাও পাই তবুও খুব একটা সমস্যা হওয়ার কথা না !

আমার বাসা যখন আর মিনিট দশেক দুরে রয়েছি তখনই অনুভব করলাম যে জায়গাটা একেবারে নিশ্চুপ হয়ে আছে । এমন কি রাস্তায় কোন আলোও জ্বলছে না । আমি আগেই বলেছি আমি থাকি অফিসের কাছাকাছি । পিক আওয়ারে এই এলাকাটা বেশ জমজমাট থাকে কিন্তু ছুটির দিন গুলোতে কেমন যেন নিশ্চুপ আর নির্জন মনে হয় । এই যে অফিস ছুটির পরে এই স্থানটা যেন মৃত্যুপুরি হয়ে গেছে । কিন্তু আজকে যেন আরও বেশি নির্জন মনে হচ্ছে । এতো নিশ্চুপ হওয়ার কারণ কী?

আমি দ্রুত হাটতে শুরু করলাম । তখনই আমার মনে হল কেউ যেন আমার পেছন পেছন হাটছে ।
যতদুরে চোখ যায় আমি কাউকে দেখতে পাচ্ছি না । রাস্তার পাশে অন্য দিন হকারের দোকান বসে, রিক্সাওয়ালা থাকে আজকে কেউ নেই কিছু নেই ! ঢাকা শহর এতো নির্জন হয় নাকি?
এই ব্যাপারটা আমার কাছে সত্যিই বেশ অস্বাভাবিক মনে হল । আমি দ্রুত পা চালালাম । সেই সাথে এবার সত্যিই অনুভব করলাম খুব আস্তে সমর্পনে কেউ যেন আমার পিছু নিয়েছে । সে রাস্তায় এমন ভাবে পা ফেলছে যে আওয়াজ হচ্ছেই না একদম । তারপরেও আমি তার উপস্থিতি টের পাচ্ছি । আমি এবার হাটার গতি বাড়িয়ে দিলাম । অনুভব করলাম পেছন থেকেও হাটার গতি বেড়ে গেছে ।

নিজেকে বোঝানোর অনেক চেষ্টা করলাম যে কোন ভাবেই পেছনে তাকানো যাবে না, সামনে এগিয়ে যেতে হবে । তবে সেটা আর হল না । আমি পেছনে তাকিয়ে ফেললাম । আর তাতেই মনে হল যে তাকানোটা মোটেই ঠিক সিদ্ধান্ত ছিল না । আমার থেকে হাত বিশেষ দাড়িয়ে রয়েছে । মিশমিশে কালো দেহ । দেহে কোন পোশাক নেই তার । সব কিছু অন্ধকার কেবল তার চোখ ছাড়া । কোন মানুষের চোখ এমন লাল হতে পারে আমার সেটা ধারণা ছিল না । সে আমার দিকে তাকিয়ে রয়েছে । আমার মনে হল এখান থেকে আমার এখনই পালাতে হবে । যে কোন ভাবেই আমাকে পালাতেই হবে । কিন্তু তখনই অনুভব করলাম যে আমি একদমই নড়তে পারছি না । আমার পুরো শরীর যেন অবশ হয়ে গেছে । ঐ চোখের দিক থেকে আমি নিজের নজর সরাতে পারছি না একদমই । আমাকে যেন সম্মোধন করে ফেলেছে সে । সে আস্তে আস্তে এগিয়ে আসতে লাগলো আমার দিকে । আমি অসহায়ের মত দাড়িয়ে রইলাম কেবল । আমার যেন কিচুই করার নেই । যতই সে এগিয়ে আসতে লাগলো ততই আমি তার অয়বয়টা ভাল করে ধরা পড়তে লাগলো আমার চোখ । হ্যা সে দেখতে মানুষের মতই । তারপরেও আমার মনে হল যে সে মানুষ না ।

সে আরও এগিয়ে এল আমার দিকে । যখন আমার থেকে আর মাত্র কয়েক হাত দুরে তখনই একটা অবাক করা ব্যাপার ঘটলো । আমি দেখতে পেলাম কোথা থেকে যেন মিউ লাফিয়ে এসে পড়লো আমাদের দুইজনের মাঝে । তারপর সামনের ঐ প্রাণীটার দিকে তাকিয়ে প্রবল কন্ঠে ডেকে উঠলো । সাথে সাথেই আরও অবাক করা ঘটনা ঘটলো । কোথা থেকে যেন আরও সাত আটটা বেড়াল আমাকে ঘিরে ধরলো । এমন ঐটার দিকে আক্রমনত্মক ভঙ্গি করে হিশহিস করতে লাগলো । আমি কেবল অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলাম । কী হচ্ছে, আর কেন কীভাবে হচ্ছে কিছুই যেন মাথায় ঢুকলো না আমার । তবে দেখলাম সেই লাল চোখের মানুষটা পিছাতে শুরু করলো । আস্তে আস্তে সে অন্ধকারে মিলিয়ে গেল ।
তখনই আমি নিজেকে ভার মুক্ত অনুভব করলাম । আমার সামনেই মিউ দাড়িয়ে ছিল । আমি দ্রুত মিউকে কোলে তুলে নিলাম । তারপর আমার বাসার দিকে হাটা দিলাম । আমি আরেকটা ব্যাপার খেয়াল করলাম । আমাদের আশে পাসে ঐ অন্য বেড়াল গুলও আসতে লাগলো। আমার কাছে মনে হল ওরা যেন আমাকে গার্ড দিয়ে নিয়ে আসছে বাসায় । বাসা পর্যন্ত এগিয়ে দিয়ে ওরা চলে গেল । মিউকে নিয়ে বাড়ির গেট পর্যন্ত এসেছি এমন সময় সে আমার কোল থেকে ঝাপিয়ে পড়লো । তারপর আমাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই অন্ধকারে মিলিয়ে গেল ।
ঐদিন রাতে মিউ আর বাসায় এলো না । আমার কাছে পুরো ব্যাপারটা অস্বাভবিক মনে হল । তবে এটার কোন ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই । আমি খুজেও পেলাম না ।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 4.8 / 5. Vote count: 38

No votes so far! Be the first to rate this post.

Related Posts

2 thoughts on “দ্যা ম্যাও প্রিন্সেস

  1. দ্বিতীয় পার্ট তাড়াতাড়ি দেওয়ার জন্য অনুরোধ রইল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *