নীতুর ছবি

oputanvir
4.8
(76)

নীতু রান্না ঘরে নিজের কাজে মন দিয়ে রাখলেও ওর একটা কান সব সময় রিয়াদের দিকেই ছিল । কখনও গোসলের জন্য ঢুকবে সেই দিকে খেয়াল ছিল । গোসলে ঢোকার সাথে সাথেই চুড়ার জ্বালটা কমিয়ে দিয়ে সে দ্রুত শোবার ঘরের দিকে এগিয়ে এল । ওর চোখ তখন খুজতে ব্যস্ত । সেটা পেতেও দেরি হল না । বালিশের পাশেই সেটা রাখা । ফোনটা হাতে নিতেই মনের মাঝে একটা অপরাধবোধ কাজ করলো । যতই রিয়াদ ওর স্বামী হোক, এই ভাবে না বলে অন্যের ফোনে হাত দেওয়া কি ঠিক হবে? ফোন হচ্ছে মানুষের সব থেকে ব্যক্তিগত জিনিস । এমন এক ব্যক্তিগত জিনিস যা কোন ভাবেই বিনা অনুমুতিতে হাত দেওয়া ঠিক না ।
তাহলে?
কী করবে নীতু এখন ?
কিন্তু যদি না দেখে তবে শান্তিও পাবে না মনে !

রিয়াদের সাথে নীতু বিয়ে হয়েছে মাস তিনেক । রিয়াদ স্বামী হিসাবে বেশ ভালই মনে হয়েছে নীতুর । তবে একটু চুপচাপ । কথা কম বলে । অবশ্য বিয়ের পর নীতু যখন শ্বশুর বাড়ি ছিল তার শাশুড়ি তাকে এই কথা বলেই দিয়েছিলো । বলেছিলো যে রিয়াদ কথা কম বলে । তবে তার ছেলেটা ভাল । নীতু সেটা এই কদিনে বেশ ভাল ভাবেই বুঝতে পেরেছে । কথা কম বলে রিয়াদ তবে মানুষ হিসাবে বেশ ।

কিন্তু গত পরশুদিন নীতুর মনে একটা দাগ এসে হাজির হয়েছে । কিছুতেই সে মন থেকে কথাটা দুর করতে পারছে না । বারবার মনে হচ্ছে যে ব্যাপারটা ওকে দেখতে হবেই । গত পরশুদিন হঠাৎ করেই রিয়াদের ফোনের দিকে চোখ চলে যায় । সেটার ওয়ালপেপারে একটা মেয়ের ছবি দেওয়া রয়েছে । এই কদিন আগে ওদের একটা বিয়ের ছবি দেওয়া ছিল । কিন্তু গতপরশু দিন দেখলো একটা মেয়ের ছবি । ওয়ালপেপার টা দেখার পর থেকেই মনে শান্তি পাচ্ছে না ।
নিজের মনকে সে বুঝানোর চেষ্টা করেছে যে হয়তো কোন মডেল কিংবা নায়িকার ছবি দেওয়া রয়েছে । কিন্তু তারপরেই মনে হয়েছে যে কেন অন্য কোন মেয়ের ছবি কেন থাকবে? হোক সেটা মডেল কিংবা নায়িকা ! কেন থাকবে ! তাই সে দেখতে চায় যে কার ছবি সেখানে রয়েছে । সেটা দেখার জন্যই সে সুযোগ খুজছিলো এবং সেটা চলে এসেছে । ফোনটা হাতে নিয়ে আর কিছু ভাবলো না । যদি ফোনটা লক করা থাকেও তবুও লক স্ক্রিনে ছবিটা দেখতে পারে ।
পাওয়ার বাটন চালু করতেই ছবিটা ফুটে উঠলো চোখের সামনে । একটা মেয়ের ছবিই । বুকের ভেতরে একটা কষ্ট অনুভব হল নীতুর । একটা মেয়ের ছবি । তবে মেয়েটা পেছন দিকে ফিরে আছে । অন্ধকার অন্ধকার ছবিটা । মেয়েটা শাড়ি পরে রয়েছে । পিঠটা বেশ ফাঁকা । কোমরের কাছটাকে বেশি ভাল করে ফোকাস করা হয়েছে । সেদিকে তাকাতেই নীতুর মনে একটা তীব্র বিস্ময়বোধ এসে ধাক্কা দিল । কারণ ছবিটা ওর নিজের !

নীতু আরও কিছু সময় ছবির দিকে তাকিয়ে রইলো । হ্যা সত্যিই ছবিটা ওর নিজের । ওদের এই বাসার বারান্দার ছবি । সন্ধ্যা বেলা তোলা । রিয়াদ কখন ছবিটা তুলেছে সেটা নীতু জানেও না । যে কষ্টের অনুভূতিটা ছিল সেটা কেটে গেল মুহুর্তেই ।
কী মনে হল শোয়াইপ করলো ফোনটা । ফোনটা আনলোক হয়ে গেল ।ওয়ালপেপারেও ঠিক ওর ছবিই দেওয়া । এই ছবিটাও কখন তুলেছে রিয়াদ সেটা নীতু জানে না । সদ্য গোসল করে বের হয়েছে । পরনে কেবল মাত্র তোলায়ে জড়ানো । আর কিছু নেই । অন্য একটা তোয়ালে দিয়ে চুল মুছছে । কখন তুললো ছবিটা সে ?
নীতু ভাবতে লাগলো !
তারপরই নীতু আরেকটা কাজ করলো । গ্যারালীতে ঢুকলো । মনের ভেতরে আর একটা সন্দেহ দেখা দিল সেটা দুর করা দরকার । গ্যালারিতে ঢুকে দেখলো সেখানে কেবল ওর নিজের ছবি । সব ক্যান্ডিড । ঘুমন্ত চেহারা থেকে শুরু করে রান্না ঘরে কাজ করা পর্যন্ত প্রতি মুহুর্তের ছবি । এমন কী সেখানে আজকেও ছবিও রয়েছে ।

নীতু ফোনটা হাতে নিয়েই চুপ করে বসে রইলো । বিয়ের পর নীতুর একবার মনেও হয়েছিলো যে হয়তো ওকে রিয়াদের পছন্দ হয় নি। চুপচাপ থাকেলও নতুন বউয়ের প্রতি একটা আগ্রহ তো থাকবে । কিন্তু সেটা কম ছিল রিয়াদের । কিন্তু এখন সেটা মনে হচ্ছে না মোটেও । আগ্রহ যদি নাই থাকবে তাহলে এইভাবে এতো ছবি কেন তুলবে সে !

একটু পরেই ওয়াশরুমের দরজা খুলে বের হয়ে এল রিয়াদ । নীতুকে ঘরে বসে থাকতে দেখে আর নীতুর হাতে ফোনটা দেখে বলল, কী ব্যাপার ! এটা কিন্তু ঠিক না !
নীতু বিন্দু মাত্র দ্বিধা না করে বলল, কোনটা ঠিক না ?
-এই যে অন্যের ফোন হাতে নেওয়া ।
-আচ্ছা আর অন্যের ছবি লুকিয়ে লুকিয়ে তোলা খুব ভাল ?
একটু থতমত খেতে রিয়াদ বলল, অন্যের ছবি তো তুলি নি, নিজের বউয়ের ছবি তুলেছি ।
-আমিও অন্যের ছবি দেখি নি । নিজের ছবি দেখেছি । তাও আবার নিজের স্বামীর ফোনে ।

ফোনটা বিছানার উপরে রেখে এবার নীতু উঠে দাড়ালো । রিয়াদ কিছু বলার আগেই ওকে জড়িয়ে ধরলো । সদ্য গোসল করে বের হয়েছে । শরীরটা বেশ ঠান্ডা । নীতু বলল, এতো এতো ছবি কেন তুলেছে শুনি?
রিয়াদ একটু চুপ করে থেকে বলল, তোমাকে দেখতে ভাল লাগে । অফিসে কাজের ফাঁকে সময় পেলে এই ছবি গুলো দেখি ।
-তা আমাকে বললে আমি কি ছবি তুলতে দিতাম না?
-না মানে তুমি আবার কী মনে কর !
-আসছে কী মনে কর ! এখন থেকে ছবি তুলতে চাইলে আমাকে বলবে । আর লুকিয়ে না । মনে থাকবে ?
-আচ্ছা ! মনে থাকবে ….. কিছু পুড়ছে মনে হচ্ছে !

নীতুর তখনই মনে হল চুড়ায় মাছ দিয়ে এসেছিলো । যদিও আগুন কমিয়ে দিয়েছিল তবুও সেটা অনেক সময় । রিয়াদকে ছেড়ে দিয়ে বলল, সর্বনাশ ! আমার মাছ …।
সে দৌড় দিল রান্না ঘরের দিকে ।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 4.8 / 5. Vote count: 76

No votes so far! Be the first to rate this post.

About অপু তানভীর

আমি অতি ভাল একজন ছেলে।

View all posts by অপু তানভীর →

One Comment on “নীতুর ছবি”

  1. একটা সময় ছিল যখন কোন একজনের ছবি কাজের ফাঁকে ফাঁকে দেখতাম,মনে শক্তি আসত। সে চলে যাওয়ার পর নিজেকে নিজে দেখি

Comments are closed.